ADS BY VOICE

মালদ্বীপে করনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করতে বৃহত্তর মালের লকডাউন আরও ১৪ দিন বাড়ানো হয়েছে।

- 2 weeks ago 0 Bilal -

নোবেল করোনাভাইরাস: H.P.A( হেলথ প্রটেকশন এজেন্সি মালদ্বীপ) বৃহত্তর মালে অর্থাৎ মালে, হুলুমালে, গুলিফালহু,ভিলিঙ্গিলি এবং তিলাফুশির লকডাউন আগামী ২৮ মে পর্যন্ত বাড়ানোর ঘোষণা করেছে।

ADS BY GOPRIME

মালদ্বীপে করনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করতে বৃহত্তর মালের লকডাউন আরও ১৪ দিন বাড়ানো হয়েছে।

গত ১৫ এপ্রিল, স্থানীয় একজন করনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় পর কর্তৃপক্ষ বৃহত্তর মালেতে ২৪ ঘন্টার জন্য লকডাউন ঘোষণা করেন। পরে আরো ২৪ ঘন্টা লকডাউন বাড়ানো হয় আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের সনাক্ত করণের জন্য। পরে ১৭ ই এপ্রিল থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ১৪ দিনের জন্য আবারো লকডাউন ঘোষণা করা হয় যা পরে আবারও ১৪ দিনের জন্য বাড়ানো হয়েছিল ।

নতুন এই আদেশটি ১৪ ই মে থেকে ২৮ মে পর্যন্ত বৃহত্তর মালে এরিয়ার মধ্যে কার্যকর হবে ।

লকডাউন চলাকালীন নিম্নলিখিত বিষয়গুলো কঠোরভাবে নিষেধ করা হয়েছে:

মালে, হোলুমালে এবং ভিলিমালের রাস্তায় কোন প্রকার যানবাহন ও কোন মানুষ চলাফেরা করতে পারবেনা।

মালে, হূলুমালে ও ভিলিমালের মধ্যে বাস এবং ফেরিসহ সব ধরনের পাবলিক ট্রান্সপোর্ট সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে।

মালে, হুলহূমালে, তিলাফুশি এবং গুলিফালো থেকে বাহির হওয়া এবং প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো সবার জন্যই কার্যকর শুধুমাত্র নিচে উল্লেখিত ব্যক্তি বা সংস্থা বাদে:

পুলিশ ও সেনাবাহিনীর বাহন এবং অফিসারগণ

অ্যাম্বুলেন্স

স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত অফিসার এবং তাদের বাহন

জাতীয় সঙ্কট মোকাবেলা কেন্দ্র (এন ই ও সি) কর্তৃক ইস্যুকৃত পাস গ্রহণকারী

এন ই ও সি কর্তিক ইস্যুকৃত পাস গ্রহণকারী সাংবাদিকগণ

মালদ্বীপ পুলিশ কর্তৃক ইস্যু করা পাস বহনকারী যেকোনো ব্যক্তি

মালদ্বীপে এই পর্যন্ত সর্বমোট ৯৫৫ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন যার মধ্যে ৪০ জন সুস্থ হয়েছেন আর চারজন মারা গেছেন এবং ৯১২ জন চিকিৎসাধীন আছেন।

গত ১২ ই মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা w.h.o. করোনা ভাইরাসকে বিশ্ব মহামারী হিসেবে ঘোষণা করার পর মালদ্বীপে জনস্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা বা পাবলিক হেলথ ইমারজেন্সি ঘোষণা করা হয়।

গত ১৫ এপ্রিল মালদ্বীপের রাজধানী মালেতে (বিশ্বের সবচেয়ে ঘন জনবসতি মূলক শহর গুলোর মধ্যে একটি) স্থানীয় একজন করনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত গতিতে বেড়ে যায়।

মালদ্বীপে কোন ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম ব্যক্তি মারা যান ২৯ এপ্রিল তিনি ছিলেন ৮৩বছর বয়স্ক একজন মহিলা। তারপর ৮০ বছর বয়সী একজন স্থানীয় ব্যক্তি ও ৩৩ বছর বয়সী বাংলাদেশী তরুণ জীবন যুদ্ধের এই লড়াইয়ে হেরে গিয়ে পরলোকগমন করেননোবেল করোনাভাইরাস: H.P.A( হেলথ প্রটেকশন এজেন্সি মালদ্বীপ) বৃহত্তর মালে অর্থাৎ মালে, হুলুমালে, গুলিফালহু,ভিলিঙ্গিলি এবং তিলাফুশির লকডাউন আগামী ২৮ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

নতুন এই প্রাণঘাতী ভাইরাসে এ পর্যন্ত বিশ্বে মোট ৪৪ লাখেরও বেশি লোক আক্রান্ত হয়েছেন এবং ২৯৮,১০০ অধিক মানুষ মারা গেছেন। যাইহোক, এর মধ্যে ১৬ লাখ মানুষ সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন।

0%

0%

0%

0 Comments

খবর